সোনারগাঁয়ে সাবেক সিরাজ চেয়ারম্যানের পেটুয়া বাহিনীর চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

সোনারগাঁও প্রতিনিধিঃ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও থানার পিরোজপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুলহক ভূঁইয়ার ছেলে রাসেল গংদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে কয়েকটি গ্রামের বাসিন্দা ।

উপজেলার দুধঘাটা গ্রামের মৃত কুদ্দুস আলীর ছেলে, বি এন পির পিরোজপুর ইউনিয়ন সভাপতি মাদক সেবন সহ একাধিক অপরাধ দিয়ে জীবন শুরু হলেও এখন সে পুরোদুস্তুর চাঁদাবাজ- ভূমিদস্যু হিসেবে পরিচিত। তার বিশাল পেটুয়া বাহিনী দিয়ে এলাকায় কায়েম করেছে ত্রাসের রাজত্ব। তার সহযোগীদের মধ্যে অন্যতম সন্ত্রাসী রাসেল ভূঁইয়া সহ আছে শতাধিক ক্যাডার বাহিনী ও কিশোর গ্যাং। বর্তমান সরকারের দলীয় পরিচয় দিয়ে চলা এই সিরাজুল ইসলাম ভূঁইয়া স্বার্থের কারণে জাতীয় পার্টির নেতার নাম পরিচয় দিয়ে করছে নানা অপকর্ম।

উল্লেখযোগ্য যে, গত (২২জুন ) ইউনিক পাওয়ার প্ল্যান্ট এ-র রাস্তা প্রশস্তকরণের জায়গার ক্ষতিপূরণ না দিয়ে জোরপূর্বক রাস্তা নির্মাণে বাধা দিলে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ৫/৬জনকে কুপিয়ে আহত করে বাড়িঘর ভাঙচুর লুটপাট করে অর্ধকোটি টাকার মালামাল নিয়ে যায়। ভুক্তভোগী মৃত শরবত আলীর ছেলে, বজলুল হক বাদী হয়ে থানায় সিরাজুল হক ভূঁইয়াকে প্রধান আসামি করে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে, ২০ থেকে ২৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। বিষয়টি নিয়ে পত্রিকায়ও সংবাদ প্রকাশ হয়। সোনারগাঁও থানার পিরোজপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুলহক ভূঁইয়া দীর্ঘ সময় ধরে একক আদিপত্য বিস্তার করে এলাকার জনগণকে জিম্মি করে রেখেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই সাবেক চেয়ারম্যানের সকল অপরাধ অপরাধ সম্রাজ্যর নেতৃত্ব দিয়ে আসছে তার বড় ছেলে রাসেল ভূঁইয়া। বিএনপি নেতা বর্তমান জাতীয় নেতা পরিচয়দানকারী সিরাজুলহক ভূঁইয়ার তিন ছেলে । রাসেল, মামুন, সুমন, তিন ছেলের আছে আলাদা আলাদা পেটুয়া বাহিনী, আছে টর্চার সেল।

এলাকায় অবৈধ দখলদার সহ চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রন করে এই সাবেক চেয়ারম্যান পরিবার। লোক মুখে শোনা যায়, সিরাজুল হকের বাড়ির ভাড়াটিয়া রিক্সার চালকের মেয়েকে ধর্ষণ করে মোটা অংকের বিনিময়ে ধামাচাপা দিয়েছেন, তাদের ভয়তে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। সোনারগাঁও পিরোজপুর ইউনিয়নের প্রাক্তণ চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভূঁইয়া , নিজের রাজ্যে নিজেই এক জালিম রাজা। এ যেন আরেক এরশাদ শিকদার সহ বড় বড় বিতর্কিত লোমহর্ষক ঘটনার জন্ম দেয়া অমানবিক ইতিহাসের হিস্যা।

সিরাজ চেয়ারম্যানের ভয়ে স্থানীয়রা কেউ মুখ খুলে না। তার মদদে পিরোজপুর ইউনিয়ন ৩ নং ওয়ার্ড ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে কিশোর গ্যাং। এই কিশোর গ্যাং গুলো কয়েকটি ধাপে সাবেক সিরাজ চেয়ারম্যানসহ সহ তার ছেলেরা নিয়ন্ত্রণ করে। সোনারগাঁও বেড়েছে কিশোর গ্যাং এর তৎপরতা। দুধ ঘাটা গ্রাম সহ কয়েকট এলাকায় সিরাজ চেয়ারম্যানের অন্ধকার জগতের নেটওয়ার্ক। যেখানে লোকচক্ষুর আড়ালে চলে মাদক, ক্যাসিনো সহ সকল অপকর্ম।

এমনকি দুধ দুধ্ঘাটা গ্রামে এলাকা বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে চলে তার নারীদেহ ব্যবসায়ীদের দিয়ে অসামাজিক বাণিজ্য। তার নিয়ন্ত্রিত পিরোজপুর ইউনিয়ন ৩নং ওয়ার্ডের এলাকায় তার নিজের তৈরি করা চাঁদাবাজরা মহল্লায় আধিপত্য বিস্তার করে।

দল বেদে মেয়েদের ইভটিজিং ছিনতাই ধর্ষণ, খুন পর্যন্ত হচ্ছে এদের হাতে। তাদের ইতিহাস ঘাটলে বেড়িয়ে আসবে একের পর এক লোমহর্ষক ঘটনা।

এ ব্যাপারে সিরাজ চেয়ারম্যানের ব্যবহৃত মোবাইলে ফোন করা হলেও রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

চলবে….

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares