সাঁতারই সেরা ব্যায়াম

সকালের ডাক ডেস্ক

সাঁতার হলো স্বস্তির ব্যায়াম। শক্তিশালী কাঁধ, কোমর কিংবা শারীরিক গঠনের জন্য সব সময় আলাদা ব্যায়াম করতে হয়, কিন্তু সাঁতারে পাওয়া যায় একসঙ্গে সবকিছু। চমৎকার শারীরিক গঠনের জন্য শুধু নয়, সুস্থ থাকার জন্যও সাঁতার খুব গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা বলে থাকেন, যাঁরা নিয়মিত সাঁতার কাটেন, তাঁদের হৃৎস্বাস্থ্য ভালো থাকে। সেই সঙ্গে বাড়ে ফুসফুসের অক্সিজেন ধারণক্ষমতা।

সাঁতার নিয়ে সাবেক জাতীয় সাঁতারু এবং প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলের হেলথ ক্লাবের প্রশিক্ষক রায়হান উদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘নিয়মিত সাঁতারে পেশিগুলো শক্তিশালী হয়ে ওঠে, বাড়ে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা। সপ্তাহে অন্তত চার দিন এক ঘণ্টা করে সাঁতরালে এক মাসেই শরীরের পরিবর্তন নিজেই বুঝতে পারবেন।’

সাঁতার অনেক প্রকার। এর মধ্যে বাটারফ্লাই, ব্যাকস্ট্রোক, ব্রেস্টস্ট্রোক ও ফ্রিহ্যান্ড উল্লেখযোগ্য। প্রশিক্ষক রায়হান উদ্দীন আহমেদ আরও বলেন, ‘ভিন্ন ধরনের সাঁতার শিখে নিলে শরীরের গঠন যেমন সুন্দর হয়, মেদ ঝরার মাত্রাটাও দ্রুত হয়ে যায়। তবে যাঁরা শুধু ফিটনেস ধরে রাখার জন্য
সাঁতার কাটেন, তাঁদের জন্য ফ্রিহ্যান্ডই যথেষ্ট।’

সাঁতার শুরু করার আগে প্রস্তুতির প্রয়োজন আছে। হালকা দৌড় কিংবা দাঁড়িয়ে ফ্রিহ্যান্ড ব্যায়াম করে নিলে পানিতে পেশি টান পড়ার আশঙ্কা কমে যায়। পেশির জড়তা না সরিয়ে সাঁতারে নামলে কাঁধে কিংবা পায়ে টান পড়তে পারে। সাঁতার কাটার জন্য হালকা পোশাক পরে নিতে হবে। চোখে পানির ঝাপটা এড়াতে পরতে পারেন সুইমিং গগলস। চুলের সুরক্ষার জন্য সুইমিং ক্যাপ পরে নিন। সাঁতারের সময় যদি কানে পানি যাওয়ার শঙ্কা থাকে, সে ক্ষেত্রে কানে ইয়ার প্লাগ ব্যবহার করতে পারেন।

সুইমিংপুলের পানি জীবাণুমুক্ত রাখতে ক্লোরিন ব্যবহার হয়। তাই সাঁতার শেষে স্বাভাবিক পানি দিয়ে একবার গোসল করে নিন।

সাঁতারের সুফল

নিয়মিত সাঁতার শরীরের মেটাবলিজম–প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে।
বাড়তি মেদ ঝরাতে সাঁতার অত্যন্ত কার্যকর ব্যায়াম।
শরীরের পেশিগুলো গঠনে সুন্দর ও শক্তিশালী হয়ে ওঠে সাঁতারে।
ফুসফুসের কার্যক্ষতা বাড়ে, অ্যাজমা প্রতিরোধে সাঁতার সহজ সমাধান হতে পারে।
কোমরব্যথা, অস্থিসন্ধির ব্যথা দূর হবে সাঁতারে।
উচ্চ রক্তচাপ এবং ডায়াবেটিসের রোগীদের জন্যও সাঁতার ভালো ব্যায়াম।
সাঁতার শরীরের খারাপ কোলেস্টেরল কমিয়ে ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।
সাঁতারে ঊর্ধ্বাঙ্গ ও নিম্নাঙ্গের সমন্বয় ঘটে বলে অল্প সময়ে পুরো শরীরেরই ব্যায়াম হয়ে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares