রামুতে রেশনকার্ড ও ত্রাণের তালিকায় গরীবের পরিবর্তে ধনীদের নাম

নিজস্ব প্রতিবেদক:
চলমান করোনা পরিস্হিতিতে সরকার বাহাদুর শেখ হাসিনা সরকারের জনবান্ধব উদ্যোগ রেশন কার্ড ও ত্রানের উপকারভোগীর তালিকা তৈরীর দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান / মেম্বারেরা।গরীবের রেশনের কার্ড ও ত্রাণ ধনীর নাম ঢুকানোর গুরুতর অভিযোগ লোক মুখে শোনা যাচ্ছিল।এই বিষয়টি নিয়ে আমরা ( সংবাদ শ্রমিকরা) কয়েকদিন ধরে লেখালেখির সূত্র ধরে সরকারের হাইকমান্ড এর টনক নড়ে।

চৌকস রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা বিষয় টি গুরুত্ব দিয়ে চেয়ারম্যান / মেম্বারদের তৈরী করে পাঠানো তালিকা ধণী নাকি গরীবের নাম উঠেছে তা সরেজমিন ঘরে ঘরে গিয়ে তদন্ত করে রিপোর্ট দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে মাঠে পাঠিয়েছেন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের।
দায়িত্বপ্রাপ্ত কয়েকজন শিক্ষক নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেনঃ- অনুসন্ধানে গিয়ে তালিকায় অধিকাংশ ধনীর নাম এসেছে শুধু তা নয় ছাদ করা অট্টালিকা প্রাসাদের মালিকের নাম ও তালিকায়!!

প্রবাসী অথবা মহাসুখে শহরে বসবাস করেন এমন অনেকের নাম তালিকায় রয়েছে।আবার চেয়ারম্যানরা তাদের ধনী আত্নীয়স্বজন কিংবা নিজের সমর্থিত বলয়ের ধনী লোকের নাম দিয়ে তালিকা তৈরী করেছে।

রামুর বেশির ভাগ ইউনিয়ন পরিষদের প্রস্তুত করা তালিকায় কম-বেশি এমন ভয়াবহ চিত্র দেখা যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্ট ভুক্তভোগী লোকজন।তদন্তের বিষয় টি আজ ১৩ মে রামু উপজেলার ইউপি গুলোতে ছড়িয়ে পড়লে তালিকা প্রস্তুতকারীরা বিপাকে পড়ে যায়। অনেক চেয়ারম্যান/মেম্বার তদন্তকারী শিক্ষক কে ম্যানেজ অথবা ভয় ভীতি দেখিয়ে গরীবের নামের পরিবর্তে ধনীর নাম আসার বিষয় টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার খবর অসমর্থিত একটি সূত্র জানিয়েছেন।

তবে সব চেয়ে আশারবাণী হচ্ছে,রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা স্বচ্ছ তালিকা তৈরী করে সরকার বাহাদুরের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সঠিক ভাবে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের মাঠে গিয়ে চেয়ারম্যান/মেম্বারদের তালিকা যাচাই বাছাই করার মহতি ও জনগুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব অর্পণ করায় রামুর গরীব মানুষ গুলো ন্যায্য হক গরীবরা পাবেন আশায় বুক বেধে আছেন পাশাপাশি কঠিন হলে ও সরকারের অর্পিত দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করায় সাধুবাদ জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares