রাজশাহীতে করোনা ওয়ার্ডে ২ জন ভর্তি

রাজশাহী প্রতিনিধি:
করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুইজন ভর্তি হয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হওয়া এই দুই রোগিকে সংক্রমক ব্যাধি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন করোনা চিকিৎসক টিমের প্রধান ডা. আজিজুল হক আজাদ।

তিনি বলেন, যে দুইজনকে ভর্তি করা হয়েছে এদের একজনের বাড়ি পাবনা এবং অপরজনের রাজশাহী নগরের নওদাপাড়া এলাকায়। এদের মধ্যে পাবনা থেকে আসা যুবক ছাত্র। তিনি ঢাকার মিরপুরে থাকতেন। আর নগরের নওদাপাড়া এলাকা থেকে এসে ভর্তি হওয়া ব্যক্তি ব্যবসায়ী। তিনি ব্যবসার কাজে ঢাকার মিরপুর এলাকায় গিয়েছিলেন।
করোনা চিকিৎসক টিমের প্রধান বলেন, যেহেতু ঢাকার মিরপুর এলাকায় অনেকগুলো করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগি পাওয়া গেছে সে কারণে এই দুইজনকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। কারণ তারা দুইজনেই ওই এলাকায় ছিলেন বা গিয়েছিলেন। তাদের দুইজনের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপসর্গ থাকলেও পাবনার ছাত্রের জ্বর কিছুটা কমেছে। তাদের দুইজনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হবে।

ডা. আজাদ বলেন, তারা দুইজন ছাড়াও জ্বর-সর্দি-কাশি নিয়ে আরও দুইজন এ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের পর্যবেক্ষন ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। জ্বর-সর্দি-কাশি থাকলেও তাদের করোনা উপসর্গ নেয়। তিনি জানান, এ পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজে স্থাপিত করোনা ল্যাবে ৩০৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহী জোনে কারো শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি। তবে বগুড়ায় চিকিৎসাধীন রংপুরের একজনের শরীরে করোনা পাওয়া গেছে।

ডা. আজিজুল হক আজাদ বলেন, বর্তমানে রাজশাহী ল্যাবে ১১৩ জনের নমুনা ল্যাবে রয়েছে। এর মধ্যে শনিবার ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হবে। বাকিগুলোর পরীক্ষা হবে রোববার বলে জানান তিনি।

রাজশাহীর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে জানানো হয়, গত ১০ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত রাজশাহীতে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয় ১১২২ জনকে। এদের মধ্যে ছাড়পাত্র দেয়া হয়েছে ১০৭০ জনকে। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ৫২ জন।রাজশাহী প্রতিনিধি:
করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুইজন ভর্তি হয়েছেন। গত ২৪ ঘন্টায় ভর্তি হওয়া এই দুই রোগিকে সংক্রমক ব্যাধি হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন করোনা চিকিৎসক টিমের প্রধান ডা. আজিজুল হক আজাদ।

তিনি বলেন, যে দুইজনকে ভর্তি করা হয়েছে এদের একজনের বাড়ি পাবনা এবং অপরজনের রাজশাহী নগরের নওদাপাড়া এলাকায়। এদের মধ্যে পাবনা থেকে আসা যুবক ছাত্র। তিনি ঢাকার মিরপুরে থাকতেন। আর নগরের নওদাপাড়া এলাকা থেকে এসে ভর্তি হওয়া ব্যক্তি ব্যবসায়ী। তিনি ব্যবসার কাজে ঢাকার মিরপুর এলাকায় গিয়েছিলেন।
করোনা চিকিৎসক টিমের প্রধান বলেন, যেহেতু ঢাকার মিরপুর এলাকায় অনেকগুলো করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগি পাওয়া গেছে সে কারণে এই দুইজনকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে। কারণ তারা দুইজনেই ওই এলাকায় ছিলেন বা গিয়েছিলেন। তাদের দুইজনের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপসর্গ থাকলেও পাবনার ছাত্রের জ্বর কিছুটা কমেছে। তাদের দুইজনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হবে।

ডা. আজাদ বলেন, তারা দুইজন ছাড়াও জ্বর-সর্দি-কাশি নিয়ে আরও দুইজন এ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। তাদের পর্যবেক্ষন ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। জ্বর-সর্দি-কাশি থাকলেও তাদের করোনা উপসর্গ নেয়। তিনি জানান, এ পর্যন্ত রাজশাহী মেডিকেল কলেজে স্থাপিত করোনা ল্যাবে ৩০৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে রাজশাহী জোনে কারো শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি। তবে বগুড়ায় চিকিৎসাধীন রংপুরের একজনের শরীরে করোনা পাওয়া গেছে।

ডা. আজিজুল হক আজাদ বলেন, বর্তমানে রাজশাহী ল্যাবে ১১৩ জনের নমুনা ল্যাবে রয়েছে। এর মধ্যে শনিবার ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হবে। বাকিগুলোর পরীক্ষা হবে রোববার বলে জানান তিনি।

রাজশাহীর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে জানানো হয়, গত ১০ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত রাজশাহীতে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয় ১১২২ জনকে। এদের মধ্যে ছাড়পাত্র দেয়া হয়েছে ১০৭০ জনকে। বর্তমানে কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ৫২ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares