রাজধানীতে পুলিশ কর্মকর্তার স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক:

স্বামীর পরকিয়া নিয়ে সন্দেহের জের ধরে পারিবারিক বিরোধের কারণে রাজধানীর আদাবর এলাকায় এক পুলিশ সদস্যের স্ত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তার নাম আফরিন আক্তার মুন্নি (২৮)। সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

নিহত ওই নারীর স্বামীর নাম নজরুল ইসলাম রবিন। ‍তিনি এএসআই হিসেবে আদবর থানায় কর্মরত।প্রাথমিক তদন্ত শেষে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ বলছে, আফরিন আত্মহত্যা করেছেন। তবে আফরিনের পরিবার দাবি করছে, তাকে মেরে আত্মহত্যার গল্প সাজিয়েছেন নজরুল। তারা এ ঘটনার বিচার দাবি করেন।

আদাবর থানা পুলিশ জানায়, এএসআই নজরুল থানার অদূরে একটি ভাড়া বাসায় স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তান নিয়ে থাকেন। পারিবারিক কলহের কারণে সোমবার সন্ধ্যার দিকে বাসার একটি কক্ষে স্ত্রী আফরিন গলায় ফাঁস দেন। খবর পেয়ে থানা থেকে পুলিশ গিয়ে তার লাশ উদ্ধার করে।

তবে আফরিনের চাচা মুজিবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, নজরুলের সঙ্গে অন্য একটি মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে। মোবাইল ফোনে আফরিন তা দেখে ফেলায় নজরুল তার স্ত্রীর ওপর ক্ষিপ্ত হয়। প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে হত্যা করেছে নজরুল।

তিনি আরো জানান, গত দুই বছর ধরে এসব নিয়ে পারিবারিক কলহ চলছিল। নজরুল প্রায়শই আফরিনকে মারধর করত। গত রবিবারও নজরুল বেধড়ক পিটিয়ে আফরিনকে বাসা থেকে বের করে দেয়। সে পুলিশ কর্মকর্তা বলে তার কিছুই হবে না বলেও হুমকি দেয় এরপর সোমবারও তাকে মেরে পরে আত্মহত্যার নাটক সাজায়।

চাচার দাবি, ঘটনার পর আদাবর থানা পুলিশও বিষয়টি লুকানোর চেষ্টা করে। নজরুলের সহকর্মীরা বিষয়টি অন্যদিকে নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। অবশ্য আদাবর থানার ওসি কাজী শাহেদুজ্জামান বলেন, প্রাথমিক তদন্তে মনে হয়েছে এএসআই নজরুলের স্ত্রী আত্মহত্যা করেছেন।

পারিবারিক কলহের কারণে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটতে পারে। এরপরও তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ নিশ্চিত হওয়া যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares