যশোর থেকে ১৮ টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগ

যশোর প্রতিনিধি : জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে শুরু হওয়া অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘটে যশোরে জনজীবনে প্রভাব ফেলেছে। যশোর থেকে ১৮ টি রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় দুর্ভোগে পড়ে মানুষ। সকাল থেকে গণপরিবহন না পেয়ে বিকল্পভাবে প্রত্যেকের গন্তব্যে পৌঁছাতে হয়। আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হন তারা। অনেকেই না জেনে বাড়ি থেকে বের হয়ে বেকায়দায় পড়েন।
সকাল ১০ টায় শহরের মণিহার, শংকরপুর কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল ও খাজুরা বাসস্ট্যান্ডে একই চিত্র ছিল। সরেজমিনে দেখা গেছে, দুর্ভোগে পড়া মানুষের অনেকেই বলেন, আকস্মিকভাবে পরিবহন ধর্মঘট দেয়ায় তাদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। আর এই সুযোগ কাজে লাগাচ্ছে অটোরিকশা, ভ্যান ও ইজিবাইক চালকরা। যে জায়গার বাস ভাড়া ১৫ টাকা ছিল সেই জায়গায় যেতে নেয়া হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকা।
খাজুরা বাসস্ট্যান্ডে থাকা খাইরুল আলম জানান, তিনি মাগুরা যাবেন এক আত্মীয়ের বাড়িতে। সকালে বাসস্ট্যান্ডে এসে জানতে পারেন, পরিবহন ধর্মঘট। কোনো বাস চলবে না।  যশোর থেকে মাগুরা পর্যন্ত বাস ভাড়া ৫০ টাকা। বাস বন্ধ থাকায় ইজিবাইকে ভাড়া দাবি করছে একশ’ টাকা। কোনো উপায় না থাকায় ওই টাকা দিয়েই তাকে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে।
ইজিবাইক চালক আব্দুল মালেককে ভাড়া বাড়িয়ে নেয়ার কারণ জানতে চাইলে তিনি জানান, পরিবহন বন্ধ থাকার কারণে তাদের আয় একটু বেশি হচ্ছে। তবে, খরচও বাড়ছে। তাই জীবনের ঝুঁক নিয়ে বেশি ভাড়ায় যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছে দিচ্ছেন বলে দাবি করেন তিনি।
জ্বালানি তেলের দাম এক লাফে ১৫ টাকা বেড়ে যাওয়ার প্রতিবাদে ধর্মঘটের ডাক দেয় বিভিন্ন জেলার পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সংগঠন। তারা জানায়, জ্বালানি তেলের বর্ধিত দাম না কমানো পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।
জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে চলছে ধর্মঘট। এ কারণে হতাশায় ভুগছেন চালক-হেলপাররা। পরিবার পরিজনের খরচ যোগাতে তারাও সমস্যায় আছেন। তেলের দাম স্বাভাবিক না হলে সড়কে গাড়ি ছাড়বেন না বলে জানিয়েছেন মালিকরা। ধর্মঘটের প্রভাবে সকালে থেকে নিউ মার্কেট ট্রাক স্ট্যান্ডে সারি বেধে দাঁড়িয়ে ছিল গাড়িগুলো। চালক-হেলপাররা হাত-পা গুটিয়ে বসে ছিলেন।
যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টু জানান, করোনায় সবচেয়ে ক্ষতি হয়েছে পরিবহন খাতের। এমন সময় তেলের দাম এক লাখে ১৫ টাকা বৃদ্ধি জুলুম। ডিজেলের দাম না কমা পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares