মান্দায় আত্রাই নদীর ধারে দর্শনার্থীদের ভিড় গড়ে উঠতে পারে মিনি বিনোদন কেন্দ্র

আপেল মাহমুদ

নওগাঁর মান্দা উপজেলার বুক চিড়ে বয়ে চলেছে আত্রাই নদী। কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে পূর্ন যৌবন ফিরে পেতে যাচ্ছে আত্রাই নদী। বৈশাখের শুরুর দিকে আত্রাই নদীর পানি শুকিয়ে যায়,আবার বর্ষা কালে পূর্ন যৌবনে ফিরে আসে, এদিকে নদী পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় জমে উঠেছে বুড়িদহ সুুনজ সখির ঘাটে দর্শনার্থীর ভিড়। লকডাউনে হাপিয়়ে উঠা জীবনে শান্তির খোঁজে, একটু ফাঁকা পেলে বিকেল বেলাতে সময় করে ঘুরতে যাচ্ছেন অনেকেই। চারিদিকে নির্মল বাতাস মন জুড়ায় নদীর পারে বেড়াতে আসা মানুষদের।

২০১৭ সালে আত্রাই নদীর পানি বৃদ্ধিতে বুড়িদহ সুজন সখির ঘাট ভেঙ্গে অনেক গ্রাম প্লাবিত হয়। সেই ঘাট মেরামত করার পর সেখানে প্রতিদিন ভিড় করছে অনেক দর্শনার্থী ও স্থানীয় বাসিন্দারা।

বিকেলে ঘুরতে আসা দর্শনারথীদের মধ্যে সম্রাট,ও রিজন বলেন, এই করোনার এর মধ্যে ঘরে সারাদিন থাকার পর বিকেলে একটু সময় কাটানোর জন্য এবং ভাল পরিবেশ হওয়াই সামাজিক দুরত্ব বজাই রেখেই একটু সময় কাটানোর চেষ্টা করছি। নদীর ধারের নির্মল বাতাসে মনটা বেশ ভালো হয়ে উঠছে।

পরিবার নিয়ে বেড়াতে আসেন উপজেলার চৌধুরী পাড়ার তুহিন তিনি বলেন, এখানে এসে মনটা ভালো হয়ে গেল । লকডাউনের কারণে মুখরোচক খাবারের দোকান না থাকায় কোন কিছু খেতে পারছেনা এবং বসার জায়গার সংকট অনুভব করছে তারা।

আত্রাই নদীর পাড়ে বেড়াতে আসা আরেক পরিবার বলেন, পরিবেশটা অনেক সুন্দর তবে বসে থাকার মত কোন জায়গা না থাকায় দাঁড়িয়ে আর কত সময় থাকবো তাই ফিরে যাচ্ছি। একটু উঁচু করে ছোট ছোট বসার জায়গা থাকলে ভালো হতো।

স্থানীয় বাসিন্দা শ্রী গোপাল বলেন, উঁচু করে বসায় ব্যবস্থা থাকলে দর্শনার্থীদের জন্য ভালো হতো । তেমন কোন বসার জায়গা না থাকায় বাচ্চা নিয়ে দ্বাড়িয়ে থাকে পরিবার সহ বেড়াতে আসা দর্শনার্থীরা প্রতিদিন বিকেলে এখানে ঘুরতে আসে অনেকে। সামাজিক দূরত্ব মেনে বসার ব্যবস্থা করতে পারলে অনেক ভালো হতো। এলাকার অনেক বেকার যুবকের কর্মসংস্থান তৈরি হতো। ফাস্টফুডের দোকান করতে আগ্রহী অনেকে।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলা প্রশাসনের একটু সুদৃষ্টি পেলে নির্মল বাতাসে সময় কাটানোর জন্য দর্শনার্থীদের জন্য হয়ে উঠবে একটি মিনি বিনোদন কেন্দ্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares