নন-এমপিও শিক্ষকরা চরম আর্থিক কষ্টে দিনযাপন করছেন

মোঃশরিফুল আলম সোয়েব,চরফ্যাশন উপজেলা আওয়ামী তরুণ প্রভাষক ঐক্যের সভাপতি।।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত ২৭৩৭টি নতুন এমপিওভূক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নন এমপিও’ শিক্ষকরা চরম আর্থিক কষ্টে দিনযাপন করছেন। অবিলম্বে এসব প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত তথা এমপিও’র কোড প্রদান করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন চরফ্যাশন উপজেলা আওয়ামী তরুণ প্রভাষক ঐক্যের সভাপতি প্রভাষক মোঃশরিফুল আলম সোয়েব।

তিনি বলেন, ‘নতুন এমপিও পাওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সারা বাংলাদেশে প্রায় ৩০ হাজার শিক্ষক-কর্মচারী সরকারি একটি আদেশ জারি না হওয়ায় মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অথচ শিক্ষা মন্ত্রণালয় মনে করলেই আদেশ জারি করতে পারে। তাতে নতুন এমপিও পাওয়া প্রায় ৩০ হাজার শিক্ষকের পরিবার করোনা সংকটের সময় জীবন বাঁচাতে পারে। একটি আদেশেই পারে এসব পরিবারের কান্না থামাতে।’ অর্থ বরাদ্দ থাকার পরও মোট ২ হাজার ৭৩৭টি প্রতিষ্ঠানের এমপিও কোড প্রদান না করা সত্যিই বিষ্ময়কর।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনা সংকটের কারণে মানবেতর জীবনযাপন করছেন দেশের নন-এমপিও সব শিক্ষক-কর্মচারী। নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এক লাখের বেশি শিক্ষক-কর্মচারী সামান্য বেতনে চাকরি করেন। বর্তমানে দেশে অ্যাকাডেমিক স্বীকৃতি পাওয়া নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে পাঁচ হাজার ২৪২টি। এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে নতুন এমপিও পেয়েছে ২ হাজার ৭৩৭টি। এছাড়া অ্যাকাডেমিক স্বীকৃতির বাইরে রয়েছে আরও ২ হাজারেরও বেশি নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

দীর্ঘ ১০ বছর বন্ধ থাকার পর গত বছর ২৩ অক্টোবর একযোগে দুই হাজার ৭৩০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্ত করে তালিকা প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এরপর ওই বছরের ১২ নভেম্বর ছয়টি এবং ১৪ নভেম্বর একটি প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়। নতুন এমপিও পাওয়া এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের ২০১৯ সালের জুলাই থেকে নির্ধারিত বেতন-ভাতা পাওয়ার কথা।

কিন্তু, এমপিও তালিকা প্রকাশ করলেও বেতন ছাড়ের আদেশ জারি করছে না শিক্ষা মন্ত্রণালয়। অথচ এই আদেশ ১২ জুনের মধ্যে জারি করা না গেলে বরাদ্দ পাওয়া অর্থ ফিরিয়ে দিতে হবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে। নতুন বছরের বাজটে তা অন্তর্ভুক্ত হয়ে ফেরত আসতে সময় লাগবে আগামী সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত। চলতি মাসে আদেশ জারি করলে মে মাসের মধ্যেই শিক্ষকরা বেতন পেয়ে যাবেন। এতে করোনা সংকটের সময় প্রায় ৩০ হাজার পরিবারের জীবিকার নিশ্চয়তা তৈরি হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares