ত্বকের যত্নে ১৪টি প্রাকৃতিক উপাদানের ব্যবহার

সকালের ডাক ডেস্ক

ত্বকের রং উজ্জ্বল,মুখের দাগ, বলিরেখা এবং রোদে পড়া দাগ ইত্যাদি সামলাতে আমরা রকমারি পণ্য ব্যবহার করি। ত্বকের যত্নে ছেলে বা মেয়ে প্রত্যেকেই কম বেশি সচেতন থাকে।

ত্বকের সংবেদনশীলতার জন্য কসমেটিক্স দ্রব্যের নানা রাসায়নিক উপাদান অনেকসময় ঠিকমত ত্বকের সাথে মানিয়ে নিতে পারে না। তাই ত্বকের যত্নে প্রাকৃতিক উপাদানের কোন বিকল্প নেই। এসব উপাদানের কোন পাশ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। কিছু উপাদান রয়েছে যা সব ধরনের ত্বকের সাথেই যায়। নানা ধরণের প্রাকৃতিক উপাদান যা ত্বককে সতেজ, প্রাণবন্ত রাখতে সহায়তা করে জেনে নিই এমন কিছু উপাদান।

১. হলুদ

নানি দাদিদের আমল থেকে যে উপাদানটি রূপচর্চায় সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হয়ে আসছে তা হল হলুদ। বেসন, টক দইয়ের সাথে হলুদ মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এরপর এটি শরীরের ফাটা দাগ বা স্ট্রেচ মার্কের ওপর লাগান। নিয়মিত করলে এই দাগ দূর হয়ে যাবে। এছাড়া চালের গুঁড়া, কাঁচা দুধ, টমেটোর রস, হলুদ মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করে নিন। এটি ত্বকের বলিরেখা দূর করে থাকে। তবে হলুদ ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় মনে রাখা প্রয়োজন।হলুদ উঠানোর পর সাথে সাথে রোদে গেলে ত্বক কালচে রং ধারণ করে। কাজেই সে সময় বাইরে রোদে না যাওয়াই ভাল। আর হলুদ ব্যবহার করে মুখ ধোয়ার পর ও একটা হলুদ ভাব রয়ে যায়।আপনি যদি তা না চান তাহলে হলুদ অন্য যে কোন উপাদানের সাথে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।

২. লেবু

ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি, বয়সের দাগ বা ব্রণের বিরুদ্ধে লেবু ভালো কাজ করে। লেবুর রসকে টোনিং লোশন হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

৩. অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরার রস ত্বকের ডার্কস্পট দূর করতে সাহায্য করে, পোড়া স্থানের দাগ কমাতেও ভালো কাজ করে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতেও সহায়ক এই অ্যালোভেরা।

স্বল্প পোশাকে নুসরাতের ওই ‘হট লুক’ দেখে যা বলেছিলেন বাবা-মা?(ভিডিও)

৪. টমেটো

নিষ্প্রাণ হয়ে পড়া ত্বকে টমেটো স্লাইস করে ২০ মিনিট প্রয়োগ করুন। এতে ত্বক হবে সতেজ, ময়েশ্চারও বৃদ্ধি পাবে। তাছাড়া ত্বকের কোন প্রদাহজনিত সমস্যা থাকলে তাতে টমেটোর রস প্রয়োগ করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

৫. নিম

নিম রূপচর্চা আদি উপাদান গুলোর মধ্যে সবচেয়ে সহজলভ্য এবং অনেক বেশি কার্যকরী। কয়েকটি নিম পাতা সিদ্ধ করে নিন। এরপর তুলোর বল ভিজিয়ে সারা মুখে কিছুক্ষণ ঘষুন। এটি আপনার মুখের ব্রণ হওয়া প্রবণতা কমিয়ে দিবে। এছাড়া এটি ত্বক জীবাণু মুক্ত করে থাকে।

৬. বেকিং সোডা

ত্বক পরিষ্কার ও নতুন কোষের বৃদ্ধিতে সহায়ক বেকিং সোডা সরাসরি ব্যবহার না করে স্ক্রাব বা মাস্ক হিসেবে ব্যবহার করা উচিত। সমপরিমাণ বেকিং সোডা সমপরিমাণ অলিভ অয়েলের সাথে মিশিয়ে নিয়ে ক্লিনজিং স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

৭. মধু

বিভিন্ন খনিজ ও অন্যন্য জৈব উপাদানে ভরপুর হওয়ার কারণে মধুকে কার্যকরী ময়েশ্চারাইজার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ত্বকের ভাঁজ, বয়সের ছাপ দূরীকরণেও মধুর ব্যবহার প্রচলিত। তবে অ্যালার্জির সমস্যা থাকলে মধু ব্যবহার না করাই ভালো।

৮. চন্দন গুঁড়া

কাঁচা দুধের সাথে চন্দনের গুঁড়া মিশিয়ে তৈরি করে ফেলুন একটি প্যাক। এটি সারা মুখে লাগিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটি আপনার ত্বককে ভিতর থেকে উজ্জ্বল করবে।

৯. শসা

শসাকে গোল গোল স্লাইস করে কেটে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। ব্রণ, ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখতে শসার মাস্ক বেশ উপকারি।

 ১০. আলু

তারুণ্যদীপ্ত ত্বকের জন্য আলু হতে পারে আপনার রূপচর্চার সঙ্গী। প্রতিদিন ১৫ মিনিটের জন্য আলু মাস্ক হিসেবে ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন, এক্ষেত্রে সরাসরি স্লাইস বা রস ব্যবহার করতে পারেন। এর সাথে অল্প একটু লেবুর রস মিশিয়ে নিতে পারেন।

১১. নারিকেল তেল

অশোধিত নারিকেল এর তেল নানা অর্গানিক উপাদান খুব দ্রুতই ত্বককে সতেজ, প্রাণবন্ত ও ময়েশ্চারাইজ করার ফলাফল দেয়। ত্বককে টানটান করে তোলার পাশাপাশি সতেজ ও তরুণ করে তোলে।

১২. অলিভ অয়েল

ত্বক নরম, সতেজ ও ত্বকের কোমলতা বজায় রেখে শুষ্কতা দূর করতে অলিভ অয়েলের বিকল্প নেই। রিংকেল দূর করতেও এটি ভালো কাজে দেয়। প্রতিদিনের ফেস মাস্ক বা ক্রিমের সাথে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল মিশিয়ে ত্বকে ব্যবহার করতে পারেন।

১৩. চিনি

শুনতে অবাক লাগলেও হাতের কাছে থাকা চিনিও একধরণের স্ক্রাবিং উপাদান যা মৃত কোষকে দূর করতে সাহায্য করে। ত্বককে করে কোমল, বাড়ায় উজ্জ্বলতা। মুখ ধুয়ে তাতে চিনি দিয়ে সপ্তাহে একবার স্ক্রাব করুন আর দেখুন ফলাফল।

১৪. জাফরান

মোঘল আমল থেকে রূপচর্চায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে জাফরান। কিছুটা দামী হলেও ত্বকের জন্য এটি অমূল্য। দুধের সর বা দুধের সাথে জাফরন মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করে নিন। প্রতিদিন সকালে রোদে পড়া দাগের ওপর এটি লাগান। এটি রোদে পোড়া দাগ দূর করতে সাহায্য করবে। গোলাপ জলের সাথে কিছু জাফরান মিশিয়ে নিন। এরপর তুলার বলে সেটি লাগিয়ে মুখে লাগান। প্রতিদিন ব্যবহারে এটি আপনার ত্বকের রং উজ্জ্বল করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares