ঢাকার যেসব হাসপাতালে ফাঁকা আছে আইসিইউ

ঢাকা : করোনার প্রকোপের এই সময়ে হাসপাতালগুলোতে রোগী ধারণের ঠাঁই নেই। বিশেষ করে করোনা রোগীর সংখ্যা প্রতিনিয়িত বাড়ছে। এরমধ্যে যাদের অবস্থা জটিল হচ্ছে, তাদের ক্ষেত্রে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) যেন শেষ ভরসা।

কিন্তু রোগীর চাপে আইসিইউ ফাঁকা পাওয়াটা ভাগ্যের ব্যাপার। রাজধানীর কয়েকটি হাসপাতালে বর্তমানে অল্প কিছু আইসিইউ খালি আছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রবিবারের দেয়া তথ্যমতে, এই মুহূর্তে করোনা চিকিৎসা হয় ঢাকার এমন ১৬টি সরকারি হাসপাতালে ৫৭টি আইসিইউ শয্যা খালি আছে। তবে অবস্থা এমন চলতে থাকলে আগামী এক সপ্তাহ থেকে ১০ দিনের মধ্যে হাসপাতালে বেড ফাঁকা থাকবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে খোদ স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

ঢাকার সরকারি করোনা ডেডিকেটেড ১৬ হাসপাতালে মোট আইসিইউ শয্যা ৩৯৩টি। রবিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এই তথ্য জানিয়েছে।

রাজধানী ঢাকার করোনাস্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, করোনা ডেডিকেটেড ১৬ হাসপাতালগুলোর মধ্যে সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্সেস ও হাসপাতাল এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব কিডনি ডিজিজেস অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা হলেও সেখানে তাদের জন্য আইসিইউ নেই।

বাকিগুলোর মধ্যে রাজধানীর করোনা ডেডিকেটেড কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের ১০ বেড, সরকার কর্মচারী হাসপাতালের ছয় বেড, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০ বেড, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৪ বেড, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১০ বেড আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০ বেডের সবগুলোতে রোগী ভর্তি রয়েছে।

বাকি হাসপাতালগুলোর মধ্যে কুয়েত বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের ২৬ বেডের মধ্যে একটি, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালের ১৬ বেডের মধ্যে একটি, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালের ১৫ মধ্যে দুটি, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের আট বেডের মধ্যে একটি, টিবি হাসপাতালের ১৬ বেডের মধ্যে ১২টি, জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের ১০ বেডের মধ্যে চারটি ও ডিএনসিসি ডেডিকেটেড হাসপাতালের ২১২টি আইসিইউর মধ্যে ফাঁকা রয়েছে মাত্র ৩৬ বেড।

রোগী সংক্রমণের এই ঊর্ধ্বগতিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আগেই শঙ্কা প্রকাশ করে জানিয়েছে, দেশের প্রান্তিক পর্যায়সহ জেলা-উপজেলা ও বিভাগীয় হাসপাতালগুলোতে সাধারণ শয্যা ও আইসিইউ শয্যার সংখ্যা কমে আসছে।

সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে খোদ স্বাস্থ্য অধিদফতর। সংক্রমণের সংখ্যা কিছুতেই কমছে না জানিয়ে অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক রোবেদ আমিন বলেছেন, যেখানে গত দুই মাস আগেও সারাদেশে সাধারণ শয্যা এবং আইসিইউ বেড খালি ছিল সে সংখ্যা ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে।

রোবেদ আমিন জানান, যে হারে দেশে সংক্রমণ বাড়ছে, তাতে যদি হাসপাতালের বিদ্যমান চাপ চলতেই থাকে তাহলে আগামী সাত থেকে ১০ দিন পর আর হাসপাতালের বেড খালি থাকবে না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, শনিবার সকাল থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় যারা করোনায় মারা গেছেন তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ৬০ জন। এছাড়া ২২৫ জনের মধ্যে ১৮০ জন সরকারি হাসপাতালে মারা গেছেন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১১ হাজার ৫৭৮ জন। তাদের নিয়ে দেশে করোনা শনাক্ত ১১ লাখ ছাড়িয়ে গেল। মোট ১১ লাখ তিন হাজার ৯৮৯ জন করোনায় আক্রান্ত হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares