চরফ্যাশনে ভুমিদস্যূর নির্যাতন থেকে মুক্তি পেতে ২য় বার আবেদন বর্গা চাষীদের

চরফ্যাশন প্রতিনিধি

ভুমিদস্যুর হাত থেকে মুক্তি পেতে ২য় বারের মত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট বৃহস্পতিবার সকালে আবেদন করলেন চরকচ্ছপিয়ার ৩ শত একর জমির মালিক ও বর্গা চাষীরা ।

মো. ইউছুফ বাদী হয়ে এ আবেদন করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার ভুমিকে তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রেরণ করেছেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ আইচা থানার চরকচ্ছপিয়া গ্রামের মো. আলাউদ্দিন বেড়ী বাধের বাহিরে প্রায় ৩ শত একর জমি ও বরিশাইল্লা নামক খালে প্রায় ২ কিলোমিটার বাধ দিয়ে মাছের ঘের তৈরি করেছে যার ফলে উক্ত জমিতে ৫ শতাধিক পরিবার বছরের ৮ মাস পানি বন্দী অবস্থায় মানবেতর জীবন যাপন করা সহ জমিতে কোন ফসল উৎপাদন করতে পারছে না। গত ২৬ মে একই অভিযোগে জাতীয় সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপি’র নিকট মুক্তির দাবীতে অভিযোগ করায় ভুমিদস্যু আলাউদ্দিন গংরা ১ মে রাতে ইউছুফ বাড়ি ফেরার সময় পিটিয়ি গুরুত্বর আহত করেছে। দক্ষিণ আইচা থানার ওসি হারুন অর রশীদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।

চরকচ্ছপিয়া ৪ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোসলেউদ্দিন মজুমদার জানান, আমার ১ একর জমি আলাউদ্দিন জোর পুর্বক দখল করে ঘেরে পরিনত করেছে। মৃত দেলোয়ার পেশকারের ছেলে মো. মিজান অভিযোগ করেন তাদের ১৩ একর জমি আলাউদ্দিন জোর পুর্বক ঘের করার কারনে বর্গা চাষী সিরাজ কোন ফসল উৎপাদন করতে পারছে না।

অপরদিকে আলাউদ্দিন বাদী হয়ে জমির মালিক সহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগে জমির মালিকরা তার কাছে জমি লিজ দেওয়ার দাবী করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares