কলাপাড়ায় ওসি কর্তৃক শিক্ষক পরিবার হয়রানির মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

প্রনব নারায়ন বিশ্বাস,কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি:

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় ওসি ও তার পরিবারের হুমকীতে শিক্ষক আবু ইউসুফের পরিবার হয়রানী ও বাড়ি ছাড়া এমন মিথ্যা তথ্য সংবলিত সংবাদ সম্মেলনের প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। উপজেলার চাকামইয়া ইউনিয়ের গামুরবুনিয়া গ্রামের আব্দুল হক তালুকদারের ছেলে ও পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান টুকু’র ভাই মো. সোহরাব হোসেন ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকাল ১১ টায় কলাপাড়া রিপোর্টার্স ক্লাবে লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। এসময় তিনি সাংবাদিকদের মিথ্যা ও ভিত্তিহীন তথ্য দিয়ে সাজানো সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

মো. সোহরাব হোসেন তালুকদার তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আমার ভাই পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান টুকুসহ আমার পরিবারের হয়রানির কারনে স্থানীয় কলাপাড়া উপজেলার চাকামইয়া ইউনিয়নের গামুরীবুনিয়া গ্রামের শিক্ষক মো. আবু ইউসুফ ও তার পরিবার পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে যে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে আমি তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আমার ভাই ওসি কামরুজ্জামান ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমি প্রকৃত সত্য ও প্রমানাদি আপনাদের মাধ্যমে দেশবাসীর কাছে তুলে ধরছি। প্রকৃতপক্ষে আবু ইউসুফ একজন ঠকবাজ, মিথ্যাবাদী ও জমি দখলবাজ প্রকৃতির লোক। শিক্ষকতার লেভেল গাঁয়ে লাগিয়ে সে বিভিন্ন ধরনের অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে। বিভিন্ন ধরনের সন্ত্রাসীদের সাথে তার আতাত রয়েছে।

অর্থালোভী ও জমি দখলবাজ শিক্ষক আবু ইউসুফ ও তার বেয়াই মোস্তফা বিশ্বাস সন্ত্রাসীদের লালন-পালন ও তাদের সাথে যোগসজাগ রেখে চলে। গত ৯ সেপ্টেম্বর আবু ইউসুফের করা সাংবাদিক সম্মেলনের সময় তার পাশে থাকা হত্যা মামলার অন্যতম আসামী রুবেল তালুকদার তার জ্বলন্ত প্রমান। রুবেলের নামে কলাপাড়া থানায় একটি হত্যা মামলা রয়েছে। যাহার মামলা নং ০৯ তারিখ ৮/০২/২০১৫। একজন শিক্ষকের সাথে কিভাবে একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও হত্যা মামলার আসামীর যোগাযোগ থাকে এবিষয়ে আমি সচেতন মহলের দৃষ্টি কামনা করছি।
মো. সোহরাব হোসেন তালুকদার সাংবাদিকদের দৃষ্টি কামনা করে বলেন, মোস্তফা বিশ্বাসের বাবা ও ভাইয়ের নিকট হতে আমার বাবা আব্দুল হক তালুকদার আমাদের নামে ৩৫ শতাংশ জমি ক্রয় করেন। যাহার দলিল নম্বর ৫৫৫৪/৫৫৫৫। কিন্তু শিক্ষক আবু ইউসুফের বেয়াই মোস্তফা বিশ্বাস উক্ত জমিতে আমাদের ভোগ দখল না দিয়ে জোড় পূর্বক দখল নিতে চায়। আমার বাবার ক্রয়কৃত জমি তাদের দখল দিতে না চাইলে তার সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে উক্ত জমি জোড় পূর্বক দখলের পায়তারা চালায়। এতে আমরা বাধা দিলে মোস্তফা বিশ্বাস আমার ভাই মো. লোকমান হোসেন তালুকদারকে খুনের উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করে মাথা ফাটিয়ে ফেলে। তখন আমরা আমতলী থানায় একটি ফৌজদারী মামলা করি। যাহার মামলা নং জি.আর ২০৩/১৮ আম। কিন্তু এ বিষয়টিকেও তারা হয়রানীমূলক বলে অপপ্রচার চালাবার মিথ্যা চেষ্টা চালাচ্ছে। এছাড়াও তারা তাদের সংবাদ সম্মেলনে রহিমা নামের একটি মহিলার মামলার বিষয়ে আমাদের জড়িয়ে যে মিথ্যা অপাবাদ দিয়েছে আসলে তা সত্যি নয়। এবিষয়ের সাথে আমার বা আমার পরিবারের কোন সম্পৃক্ততা নেই।

লিখিত বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করে বলেন, আমি স্ব-পরিবারসহ আমতলী বসবাস করি। আমার ভাই লোকমান তালুকদার ও ওসি কামরুজ্জামান টুকু চাকরির সুবাধে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার বাহিরে রয়েছে। আমরা কেহই গ্রামের বাড়িতে থাকি না। অথচ তারা বলছে আমরা তাদের হুমকী ও ভয়ভীতি দেখাচ্ছি। যা প্রকৃতপক্ষে মিথ্যা ও বানোয়াট। আমাদের পরিবারের সম্মানহানীর জন্য উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এগুলো করা হচ্ছে।

তিনি আরোও বলেন, আবু ইউসুফ ও তার পরিবার বর্তমানে তাদের নিজ বাড়িতেই অবস্থান করছে। এমনকি তারা নিয়মিত কলাপাড়া পৌর শহরসহ বিভিন্ন স্থানে অনায়াসে ঘুরে বেড়াচ্ছে। অথচ আমার পরিবার তাদের বাড়িতে থাকতে দিচ্ছে না এমন অভিযোগ তুলেছে যা একেবারেই ভিত্তিহীন ও অযৌক্তিক। প্রকৃতপক্ষে মিথ্যাচার করে আমার পরিবারকে হেয় করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে ওই শিক্ষক ও তার পরিবার।

আমার ভাই কামরুজ্জামান টুকু’র উপর মিথ্যা দোষের বোঝা চাপাতে চাইছে তারা। আমি এবিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সঠিক তদন্ত ও মিথ্যাচার কারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি কামনা করছি। সংবাদ সম্মেলনের সময় তার সাথে মো. মঞ্জু তালুকদার, হাছান ঘরামী ও আব্দুস সালামসহ কলাপাড়া রিপোর্টার্স ক্লাবের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares