কমরেড বাণী দত্তগুপ্তের জীবনাবসান: শ্রমিক আন্দোলনের ইতিহাসের এক অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি

কলকাতা ব্যুরো:

ভারতের পরিবহন শ্রমিক আন্দোলনের অন্যতম বিশিষ্ট নেতা কমরেড বাণী দত্তগুপ্তের জীবনাবসান হয়েছে কলকাতার  আর জি কর  হাসপাতালে গেল বুধবার সকাল দশটায়।

ভারতের অন্যতম কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়ন  সি আই টি ইউ  এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্যদের মধ্যে অন্যতম কমরেড বাণী দত্তগুপ্তের জন্ম  বাংলাদেশের হাবলাউচ্চ  গ্রামে তৎকালীন কুমিল্লা ও বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়,যেখানে তার পরিবার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত স্কুল ও মন্দির আজও বর্তমান। দেশ বিভাজনের পর ছাত্রাবস্থাতেই তিনি কোলকাতায় আসেন এবং নিদারুন জীবনসংগ্রামের সম্মুখীন হন।

আর্থিক উপার্জনের জন্য কারখানায় কাজকরবার সাথে সাথে নিজের শিক্ষা অর্জনের কাজ  চালিয়ে যান এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রীশ চন্দ্র কলেজে থেকে বাণিজ্য বিভাগে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। ছাত্রাবস্থাতে শ্রমিক রূপে কাজ করবার সময় তিনি ট্রেডইউনিয়ন আন্দোলনের সংস্পর্শে আসেন এবং কিছু কিছু আন্দোলনের শরিক হন।
স্নাতক ডিগ্রী অর্জনকরবার পর তিনি সরকারী  চাকরী তে যোগদান করেন এবং জরুরী অবস্থা চলাকালীন সময় কর্মক্ষেত্রে ট্রেডইউনিয়ন সংগঠন গড়ে তুলবার প্ৰচেষ্টা করবার অপরাধে কতৃপক্ষ তাকে সাসপেন্ড করেন এক ই সময় কমিউনিস্ট পার্টির সাথে যুক্ত থাকার কারণে তিনি তৎকালীন কংগ্রেস কর্মী দের হাতে আক্রান্ত হয়ে প্রায় দু বছর ঘর ছাড়া হয়ে থাকেন।
এই সময়কালে তিনি শ্রমিক আন্দোলনের নেতা মহম্মদ ইসমাইল এর সংস্পর্শে  আসেন এবং সম্পূর্ণ রূপে পরিবহন শ্রমিক আন্দোলনের সাথে যুক্ত হয়ে পড়েন এবং  তৎকালীন  এ.আই. টি.ইউ সি এর নেতৃত্বাধীন বাস শ্রমিক সংগঠন বাস ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন এর নেতৃত্ব গ্রহণ করেন মৃত্যুর সময় অবধি তিনি এই সংগঠনের নেতৃত্ব দান করেগেছেন। পরবর্তী কালে এ.আই. টি.ইউ সি  বিভাজিত হয়ে সি। আই। টি। ইউ  গঠিত হলে কমরেড বাণী দত্তগুপ্তের নেতৃত্বে  বাস ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন সি।
আই। টি। ইউ  এর সাথে সংযুক্ত হয়  এর পরবর্তী দীর্ঘ বছর সি। আই। টি। ইউ  এর রাজ্য নেতৃত্বে থেকে বাস শ্রমিকদের জন্য কাজ করে গেছেন। আশির দশকের শেষদিকে রাজ্য ব্যাপী বিস্তৃত বাস ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন বিভাজিত হয়ে জেলা ভিত্তিক বাস শ্রমিক সংগঠন তৈরী হলে বাস ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন কলকাতা জেলার সম্পাদক হিসাবে হিসাবে তিনি নিজের দায়িত্বপালন করেন।
অল ইন্ডিয়া রোড ট্রান্সপোর্ট ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের ও তিনি ছিলেন অন্যতম কারিগর ও নেতৃত্ব। প্রয়াত কমরেডের স্ত্রী  ছন্দা দত্তগুপ্ত ও একমাত্র পুত্র বর্তমান। তার পুত্র শুভজিৎ দত্তগুপ্ত অন্যতম কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়ন ন্যাশনাল ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ান ট্রেড ইউনিয়ন উত্তর কলকাতা জেলা সভাপতি।

কমরেড বাণী দত্তগুপ্তের প্রয়ানে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন  সিআইটিইউ  এর রাজ্য সভাপতি সুভাষ মুখার্জী ও সাধারণ সম্পাদক অনাদি সাহু ,আই এন টি ইউ সি এর রাজ্য সভাপতি দেবাশীষ দত্ত ,টি ইউ সি সি র সর্ব ভারতীয় সাধারণ সম্পাদক এস পি তিওয়ারি  ও রাজ্য সভাপতি রবীন্দ্রনাথ চক্রবর্তী ,এ আই  সি সি টি ইউ এর রাজ্য সম্পাদক দিবাকর ভট্টাচার্য ,হিন্দ মজদূর সভার রাজ্য সম্পাদক ভূপেন পাল রায় ,সারা ভারত ফরোয়ার্ড ব্লকের কলকাতা জেলার সম্পাদক জীবন প্রকাশ সাহা ,ন্যাশনাল ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ান ট্রেড ইউনিয়ন এর রাজ্য সভাপতি তথা কেন্দ্রীয় সহসভাপতি অমিয় সরকার ,বাস মালিক সংগঠনের নেতা আলোক দাস ,ওয়েস্ট বেঙ্গল রোড ট্রান্সপোর্ট ওয়ার্কার্স ফেডারেশনের এর সম্পাদক নেপাল দেব ভট্টাচার্য ,উত্তর চব্বিশ পরগনার শ্রমিক নেতা জহর ঘোষাল ,এন  টি ইউ আই  এর নেতা সোমনাথ ঘোষ ,হকার সংগ্রাম কমিটির নেতা মুরাদ হোসেন , বি জে পি র কোলকাতা জেলা সম্পাদক প্রণব পোদ্দার,বি জে পি র  লিগ্যাল  ডিপার্টমেন্ট এর রাজ্য ইনচার্জ ব্রজেশ ঝাঁ ,বি জে পি শ্যামপুকুর মন্ডলের সভাপতি ঈশ্বর দয়াল সাহু ,বি জে পি রাজ্য সংস্কৃতিক শাখার প্রভারী দীপা বিশ্বাস   প্রমুখ।

এদিকে বাণী দত্তগুপ্তের প্রয়াণে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন দৈনিক সকালের ডাক’র সম্পাদক মন্ডলী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares