কতো ঘণ্টা রোজা রাখছে কোন দেশের মানুষ

নিউজ ডেস্ক

মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য পবিত্র রমজান মাস সবচেয়ে প্রিয় সময়। এ মাসে রোজা রাখা বাধ্যতামূলক এবং ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম।

মূলত সূর্যোদয় থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত না খেয়ে এবং নিজেকে সব ধরনের অনাচার থেকে বিরত থাকার নামই রোজা বা সিয়াম সাধনা। কিন্তু ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বিভিন্ন দেশে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্তের মধ্যে সময়ের পার্থক্য রয়েছে।

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, এ বছর সবচেয়ে বেশি সময় এবং সবচেয়ে কম সময় রোজা রাখবে কোন দেশের মুসল্লিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ বছর সর্বোচ্চ ২০ ঘণ্টা রোজা রাখতে হচ্ছে গ্রিনল্যান্ডের নুক শহর, নরওয়ের অসলো শহর এবং ফিনল্যান্ডের হেলসিনকি শহরের মুসলিমদের।

অন্যদিকে সবচেয়ে কম সাড়ে ১১ ঘণ্টার জন্য রোজা রাখতে হচ্ছে চিলির সান্তিয়াগো শহর, অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরা, নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটন শহর, আর্জেন্টিনার বুয়েনোস এয়ারস ও দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ টাউন শহরের ইসলাম ধর্মালম্বীদের।

এ ছাড়া উল্লেখযোগ্য দেশগুলোর মধ্যে সুইডেন আর জার্মানিতে ১৯ ঘণ্টা, যুক্তরাজ্যের লন্ডনে সাড়ে ১৮ ঘণ্টা, কানাডার অটোয়ায় ১৭ ঘণ্টা, যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে ১৬ ঘণ্টা আর রাশিয়ার রাজধানী মস্কো এবং ইতালির কিছু শহরে রোজা রাখতে হচ্ছে ১৭ ঘণ্টা। ।

এছাড়া ইরান, পাকিস্তান ও জাপানের কিছু শহরে ১৬ ঘণ্টা এবং তুরস্কের আঙ্কারা ও চীনের কিছু শহরে সাড়ে ১৬ ঘণ্টা রোজা রাখতে হচ্ছে। যুদ্ধবিধ্বস্ত ফিলিস্তিনের জেরুজালেমে এবং মিসরের কিছু শহরে সাড়ে ১৫ ঘণ্টা রোজা রাখতে হচ্ছে।

বাংলাদেশ, ভারত এবং সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে প্রায় ১৫ ঘণ্টা রোজা রাখছে ইসলাম ধর্মালম্বীরা।সুদানে সাড়ে ১৪ ঘণ্টা, শ্রীলঙ্কায় ১৪ ঘণ্টা, মালয়েশিয়ায় সাড়ে ১৩ ঘণ্টা এবং ব্রাজিলে রোজা হচ্ছে সাড়ে ১২ ঘণ্টা রোজা রাখতে হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares